কম পুজিতে শুরু করুন আইটি ব্যবসা

কম পুজিতে শুরু করুন আইটি ব্যবসা

একজন উদ্যোগতা যেভাবে কম পুজিতে একটি ব্যবসা বা নতুন উদ্যোগ শুরু করতে পারেন।

প্রথম ধাপ: দক্ষতার বিচার বিশ্লেষণ

প্রথমে আপনার নিজের দক্ষতা বিচার বিশ্লেষণ করুন। যেসব পণ্য বা সেবা সম্পর্কে আপনার বিশেষ আগ্রহ রয়েছে সেগুলি নির্বাচন করুন। এক্ষেত্র বলে রাখি কোন ডিজিটাল পণ্য/সেবা নির্বাচন করাই ভাল। নিজের জ্ঞানে যত টুকু হয় সেই অনুসারে আপনার নির্বাচিত পণ্য/সেবাটির স্থানীয় ও আন্তজার্তিক বাজার বিশ্নেষণ করুন। Google সার্চ করে পণ্য/সেবাটির মার্কেট সম্পর্কে ধারনা নিন। competitor সম্পর্কে ধারনা নিন এবং তাদের ওয়েব সাইট গুলি বিশ্লষণ করুন। যারা বর্তমানে উক্ত ব্যবসাটিতে যুক্ত রয়েছে তাদের সাথে সম্পর্ক করার চেস্টা করুন। এই জন্য এ সংক্রান্ত ইভেন্ট, সেমিনার, ওয়ার্কসোপ ইত্যাদি অংশ গ্রহন করুন। বিষয়টি সম্পর্কে ব্লগ পোস্ট, ফেইসবুক গ্রুপ পোস্টে ইত্যাদিতে অংশ নিন। এভাবে কিছু দিন সময় দিন এবং নিজের জানা-অজানা সম্পকে মূল্যায়ন করুন। এরই মধ্যে নিজের ব্যবসার জন্য সুন্দর একটি নাম খুজতে থাকুন, প্রয়োজনে বন্ধুদের সহযোগিতা নিন। প্রথম ধাপ শেষ।

দ্বিতীয় ধাপ: শিক্ষণ

দ্বিতীয় ধাপে কিছু Tools এর Basic ব্যবহার যা ভবিষ্যতে Advanced এর দিকে যাবেন।
১. ওয়েব সাইট কি এবং কিভাবে কাজ করে (Google, YouTube অথবা কোন বন্ধুর সহযোগিতা নিন)
২. WordPress বেসিক শিখুন (Google, YouTube, Facebook Group)
৩. Basic SEO সম্পর্কে ধারনা নিন (Googe, YouTube, Facebook Group)
৪. Basic Graphic Design শিখুন (YouTube, পরিচিত বন্ধু)
৫. বিভিন্ন অনলাইন Marketplace সম্পর্কে ধারনা নিন এবং একাউন্ট খুলুন
৬. বিভিন্ন ধরনের ডিজিটাল প্রডাক্ট সার্চ করতে থাকুন এর সম্ভবনা মূল্যায়ন করুন।
এই ধাপটিতে আপনাকে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে এবং কিছু দিন সময় লেগে যাবে।

তৃতীয় ধাপ: বিজনেস সেটআপ

১. ব্যবসার নাম চুড়ান্ত করে ব্যবসার নামে ডোমেইন রেজিষ্ট্রেশন করুন
২. ব্যবসার ওয়েব সাইট তৈরিতে হাত দিন। এতে কি কি থাকবে এর একটি রাফ লিস্ট তৈরি করুন। কাজ এগিয়ে  নিন।
৩. ব্যবসার জন্য একটি সুন্দর লোগো তৈরি করুন এবং ব্যবসার নামে সুন্দর ভিজিটিং কার্ড করুন
৪. ব্যবসার জন্য ট্রেড লাইসেন্স করার কথা চিন্তা করুন।
৫. শুরুতে কোন অফিস নেয়ার কথা চিন্তা বাদ দিন। ঘরে বসে কাজ শুরু করুন। সম্ভব হলে কারো সাথে অফিস শেয়ার করতে পারেন।
৬. ব্যবসার নামে ব্যাংক একাউন্ট করুন।
৭. আশ-পাশের পরিচিত লোক-জন, আত্নীয়-স্বজন, বন্ধুদের আপনার ব্যবসা সম্পর্কে বলুন।
৮. ব্যবসার নামে একটি ফেইসবুক পেজ, গ্রুপ খুলুন এবং একটিভ থাকুন।
৯. মার্কেটিং প্লান তৈরি করুন (কঠিন বিষয়)। কাস্টমার নক করুন। ইমেইলে বিভিন্ন জায়গায় প্রস্তাব পাঠান।
১০. নিজেই বেশির ভাগ কাজ করার চেষ্টা করুন এবং কাজ করা বা সার্ভিস দেওয়ার জন্য একটি আউট-সোর্স টিম রেডি করুন।

উরোক্ত কাজ গুলো করতে গেল আপনাকে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। অনেক গঞ্জনা সইতে হবে, অনেক সমালোচনা আসবে। এজন্য পিছু হঠা যাবে না। লক্ষ্য স্থির রাখতে হবে। সামনে এগিয়ে যেতে হবে।

About the Author

Leave a Reply